সবার শুভ বুদ্ধির উদয় হোক

শেয়ার করুনঃ

বিএনপি আমলে বলতো বাংলাদেশ গ্যাসের উপর ভাসছে, এই গ্যাস মাটির নিচে রেখে লাভ নাই। আমরা তখন বিরোধিতা করেছিলাম। তখন অনেক দেশি বিদেশি বিশেষজ্ঞ ‘গ্যাসের উপর ভাসমান বাংলাদেশ’ তত্ত্বের সমর্থনে বহু যুক্তিতর্ক হাজির করেছিল।

আমাদের বলা হয়েছিল উন্নয়নবিরোধী। সময়ে প্রমাণ হয়েছে, বাংলাদেশ গ্যাসের উপর ভাসছে না। তবে আগামী ১৫/১৭ বছরের গ্যাস মজুদ আছে। বিদেশিদের সাথে অসম চুক্তি না করে হিসাব করে খরচ করলে এবং বঙ্গোপসাগরের সম্ভাব্য মজুদ দেশের স্বার্থে উত্তোলন ও ব্যবহার করলে আগামী ১৫ বছরেও গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রয়োজন হয় না। আমরা এসব বললে বলা হয় উন্নয়নবিরোধী।
আজকে ভারতের লোভের জন্য এদেশের ফুসফুস সুন্দরবনকে ধ্বংস করার সব ব্যবস্থা পাকাপোক্ত। আমরা বিরোধিতা করছি। বলা হচ্ছে আমরা উন্নয়নবিরোধী। আমাদের দেশপ্রেম নিয়ে প্রশ্ন তোলা হচ্ছে। দেশি বিদেশি ভাড়াটে বিশেষজ্ঞরা ব্যক্তিগত স্বার্থ হাসিলের জন্য সুন্দরবনের পাশে রামপাল কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্রের পক্ষে মত দিচ্ছেন। বলা হচ্ছে উন্নয়নের জন্য বিদ্যুৎ অপরিহার্য। আমরা একমত। কিন্তু বাংলাদেশের অস্তিত্বের জন্য সুন্দরবন আরো বেশি অপরিহার্য। বিদ্যুতের প্রয়োজনের সাথে সুন্দরবনের বদলা বদলি হয় না। একটি অবাস্তব তর্কে দেশের মানুষকে ঢুকিয়ে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু বিকল্প সৌর, বায়ু, বর্জ্য দিয়ে এর চেয়ে বেশি বিদ্যুৎ উৎপাদন করা সম্ভব।

আমাদের সামনে ভারতসহ হাফ ডজন দেশের উদাহরণ আছে। তবু স্রেফ তর্কে জেতার জন্য বলা হচ্ছে আগামী ৫০ বছরেও নবায়নযোগ্য শক্তি দিয়ে এদেশে কিছু করা সম্ভব না এবং যেকোনো মূল্যে রামপাল কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্র করতেই হবে। সত্যি হলো – কয়লা বিদ্যুৎ শধু সুন্দরবনের কাছে রামপালে কেন, বাংলাদেশের যেকোনো জায়গার জন্যই ভয়ঙ্কর প্রকল্প। কার্যকর বিকল্প থাকা সত্ত্বেও পরিবেশ ধ্বংস করে বেশিরভাগটাই ভারতের লাভের জন্য নিজের বুকে ছুরি মারা হচ্ছে। আমরা এদেশের সাধারণ মানুষ অসহায়। এই প্রকল্প হয়তো সরকার করেই ফেলবে। কিন্তু ভয়ঙ্কর এক পরিবেশগত বিপর্যয় যে হবে সে বিষয়ে অন্তত আমাদের জানা এবং সবার একমত থাকা উচিৎ। সবার বোধোদয় হোক। সবার শুভ বুদ্ধির উদয় হোক। জয় বাংলা।

লেখক: মাহবুব সুমন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *